প্রযুক্তি

বাংলাদেশে তৈরি হলো প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংবলিত কিবোর্ড

এবার বাংলাদেশে তৈরি হলো প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংবলিত কিবোর্ড। আর এই কিবোর্ডটি তৈরি করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেটের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মিলিত একটি দল। দেশের সর্বপ্রথম মোবাইলে ভর্তি কার্যক্রম, প্রথম বাংলা সার্চ ইঞ্জিন ‘পিপীলিকা’, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে প্রথম ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্ক, দেশের প্রথম বাংলায় কথা বলা রোবট রিবোর পর এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন কিবোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মুকুটে নতুন পালক যুক্ত করবে।

প্রথম দিকে এই কিবোর্ডটির কোনো নাম ছিল না। কিবোর্ডটির কাজ মোটামুটি একটি ভালো পর্যায়ে যাওয়ার পরে লেখক, অধ্যাপক এবং শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এক ভিডিওবার্তায় কিবোর্ডটির জন্য সুন্দর একটি নাম প্রস্তাব করার জন্য সবার কাছে আহ্বান জানান। উনার আহ্বানে সারা দিয়ে প্রায় আড়াই হাজার মানুষ এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। প্রতিযোগীদের পছন্দের তালিকায় সবার উপরে থাকে ‘একুশে বাংলা কীবোর্ড’ নামটি। তারপর সবার দেয়া নামে কিবোর্ডটির নামকরণ করা হয় ‘একুশে বাংলা কিবোর্ড’।

একুশে বাংলা কিবোর্ড টিমের সাথে অধ্যাপক ডক্টর মুহম্মদ জাফর ইকবাল

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী এবং ২০১২-২০১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী উ খ্যই নু এবং রনিত দেবনাথ আকাশ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংবলিত বাংলা কিবোর্ড তৈরির প্রকল্প হাতে নেন। পরবর্তিতে উ খ্যই নু এবং রনিত দেবনাথ আকাশ চাকরি পেয়ে ঢাকা চলে যান। এরপর এই প্রজেক্টের সঙ্গে যুক্ত হন একই বিভাগের ২০১৩-২০১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী গৌতম চৌধুরী ও বুদ্ধ চন্দ্র বনিক। দলেরর সবার কঠোর পরিশ্রমে তৈরি হয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংবলিত কিবোর্ড। কিবোর্ডটির ইউজার ইন্টারফেস তৈরি করেন ২০১৬-২০১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ফয়সাল হক।

image source: play.google.com

কিবোর্ডটির সুবিধা

  • ইংরেজি QWERTY কিবোর্ড লে-আউটের সাথে আমরা সবাই কম বেশি পরিচিত। তাই কিবোর্ডে ইংরেজি এই লেআউটই ব্যবহার করা হয়েছে।
  • দ্রুত লেখার জন্য টাইপের পাশাপাশি কিবোর্ডে বর্ণগুলোর উপর আঙ্গুল ঘুরিয়ে বা, swipe করে লেখার ব্যবস্থা রয়েছে এই কিবোর্ডে । swipe করে লিখলে সময় যেমন কম লাগে আবার খুব সহজে এক হাতেও লেখা যায় ।
  • এই কিবোর্ডে সবসময় সব কিছু লেখার প্রয়োজনও নেই। এই কিবোর্ডটি তার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে নিজেই বুঝে ফেলবে আপনি কি লিখতে চাচ্ছেন। যেমন: আপনি লিখলেন, “আমি ভালো” এই কিবোর্ডটি তার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে বুঝে ফেলবে যে, আপনি লিখতে চাচ্ছেন “আমি ভালো আছি ” অথবা, “আমি ভালো নেই”। সময়ের সাথে সাথে কিবোর্ডের বুদ্ধি বাড়তে থাকবে। কিবোর্ড যত বুদ্ধিমান হবে আপনাকে তত কম লিখতে হবে আর আপনার পরিশ্রম ততই কমে যাবে ।
  • একজন ব্যবহারকারী বাংলা ও ইংরেজী দুটি ভাষাতেই খুব সহজে লিখতে পারবেন। মাত্র একটা ক্লিকেই ভাষা পরিবর্তন করা যায় এই কিবোর্ডে।

কিবোর্ডটির অসুবিধা

  • এটি এন্ড্রোয়েড ছাড়া অন্য অপারেটরে চালানো যায় না।
  • এই কিবোর্ডে শর্টকাট নির্দেশনা(Cut,Copy, Paste) নেই।

featured image: samakal.com

 

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top